বেকিং পাউডার VS বেকিং সোডাঃ

যেকোন কেক রেসিপির উপকরণের মধ্যে বেকিং পাউডার অথবা বেকিং সোডা কমন উপকরণ হিসেবে থাকে। দুটি জিনিসের কাজ অনেকটা এক।

আবার দুটিই খাবারে কার্বনডাইঅক্সাইড উৎপন্ন করে খাবারকে ফোলাতে সাহায্য করে। তাই অনেকের মনেই দ্বিধা কাজ করে যে দুটি একি জিনিস কিনা বা একটির পরিবর্তে অন্যটি ব্যবহার করা যাবে কিনা? এই বিষয়টি নিশ্চিত করতে আজকের পর্বে বেকিং পাউডার ও বেকিং সোডা সম্পর্কে কিছু তথ্য তুলে ধরলামবেকিং

সোডাঃ বেকিং সোডা হচ্ছে সোডিয়াম বাই কার্বনেট। এটি যখন কোনো ভিজা বা এসিডিক উপাদান যেমনঃ দই, ভিনেগার, লেবু, বাটারমিল্ক, চকলেট, মধু ইত্যাদির সংস্পর্শে আসে তখন কার্বনডাইঅক্সাইড উৎপন্ন করে খাবারকে ফুলিয়ে তোলে। বেকিং সোডার পরিবর্তে বেকিং পাউডার ব্যবহার করতে হলে ৩ গুণ বেশি বেকিং পাউডার ব্যবহার করতে হবে। অর্থাৎ কোনো রেসিপিতে ১ চা চামচ বেকিং সোডা ব্যবহার করতে বলা হলে কেউ যদি এর পরিবর্তে বেকিং পাউডার ব্যবহার করতে চায় তবে তাকে ৩ চা চামচ বেকিং পাউডার ব্যবহার করতে হবে।

বেকিং পাউডারঃ বেকিং পাউডারেও বেকিং সোডার মত সোডিয়াম বাই কার্বনেট আছে। তাছাড়া এতে আরোও আছে ক্রিম অফ টারটার এবং স্টার্চ। বেকিং পাউডার দুই ধরণের হয়- সিঙ্গেল এক্টিং এবং ডাবল এক্টিং।সিঙ্গেল এক্টিং বেকিং পাউডার এক্টিভেট হয় ভেজা অবস্থায়।আর ডাবল এক্টিং বেকিং পাউডার কাজ করে দুই ধাপে।কিছু কার্বনডাইঅক্সাইড কক্ষ তাপমাত্রায় ছাড়ে আর কিছু ওভেনে দেয়ার পর।১ চা চামচ বেকিং পাউডারের পরিবর্তে বেকিং সোডা ব্যবহার করতে চাইলে এতে ১/৪ চা চামচ বেকিং সোডার সাথে ১/২ চা চামচ ক্রিম অফ টারটার অথবা ১চা চামচ লেবুর রস অথাবা ১চা চামচ ভিনেগার ব্যবহার করতে হবে।